স্বল্প টাকায় চন্দ্রনাথ পাহাড়,বাশবাড়িয়া বিচ,পতেঙ্গা বিচ,নেভাল ভ্রমণ।

Print

 

যাওয়া:

ঢাকা থেকে রাত ১০:৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম মেইল ট্রেন ছেড়ে যায়(ভাড়া ১২০টাকা)তবে লোকান ট্রেনের মতই আগে ট্রেনে উঠে সিট নিতে হবে তা নাহলে দাঁড়িয়ে যেতে হবে।উঠার আগে রাতের খাবার খেয়ে নিন ৫০টাকার মধ্যে আর সাথে ২০ টাকার মত হাল্কা খাবার নিয়ে নিন।ট্রেন পৌছাবে সকাল ৬:৩০ মিনিটে সীতাকুণ্ড। নেমে ভাই ভাই হোটেল থেকে ২৫টাকায় সকালের নাস্তা খেয়ে নিন।তারপর ১০টাকা জনপ্রতি ভারায় অটোরিক্সা বা সিএনজি করে চলে যান চন্দ্রনাথ পাহাড়ে।পাহাড়ে উঠার আগে সাথে কিছু খাবার আর অবশ্যই খাবার স্যালাইন নিয়ে নিন প্রায় দের লিটারের মত।তারপর হাতে ১০টাকা ভাড়ায় ছোট বাঁশ নিয়ে নিন আর উঠে পড়ুন।সামনে গিয়ে দুইটা রাস্তা পাবেন।সবাই বলে ডান দিক দিয়ে উঠতে তবে আমি বলবো বাম দিকের রাস্তা দিয়ে উঠার।ডান দিকের রাস্তা দিয়ে উঠলে আপনি সহজে উপরে যাবেন সিঁড়ি বেয়ে আর তেমন কিছু দেখতে পাবেন না।কিন্তু বাপ দিকের রাস্তা দিয়ে উঠলে সারা রাস্তা #ব্যয়ার_গ্রীলস এর মত মজা নিতে নিতে উঠতে পারবেন আর সাথে অনেক ভিউ পাবেন।একটু ভয়ংকর তবেন অনেক রোমাঞ্চকর। উঠতে গিয়ে মাঝ পথে আরো ২টা রাস্তা পাবেন।একটা ছোট মন্দিরে গেছে আর একটা অন্য রাস্তা। সেখান থেকে আপনারা অন্য রাস্তাটাই ব্যবহার করবেন।২০-২৫ মিনিট উঠার পর বিশ্রাম এর জায়গা পাবেন।সেখানে একটু রেস্ট নিয়ে নিন।তারপর আর একটু উঠলেই আপনি পাহাড়ের উপরে।নামার সময় দ্বিতীয় রাস্তা তথা সিঁড়ি বেয়ে নেমে পড়ুন।নামার সময় বুঝবেন যে আমি কেন এই রাস্তা দিয়ে উঠতে নিষেধ করেছিলাম।তারপর আবার একই ভাড়ায় চলে আসুন সীতাকুণ্ড বাজার।সেখান থেকে ৮ নাম্বার বাস ছাড়ে ১৫ টাকা জনপ্রতি ভাড়ায় উঠে পড়ুন বাশবাড়িয়ার উদ্দেশ্যে।বাস আপনাকে বাশবাড়িয়া হাইওয়েতে নামিয়ে দিবা।এবার রাস্তা পার হয়ে সিএনজি নিয়ে চলে যান বিচে(২০টাকা জনপ্রতি)।সেখানে দুপুর কাটান চিল করেন।এবার ৪০টাকায় দুপুরের লাঞ্চ করে নিন।লাঞ্চ করে আবার চলে আসুন হাইওয়েতে। আবার রাস্তা পার হয়ে ৮নাম্বার বাসে উঠে চলে যান অলংকার (২৫ টাকা ভাড়া)।সেখানে নেমে ১১ বা ১২ নাম্বার বাসে উঠে ফ্রি বিচ নেমে যান(১৫টাকা ভাড়া)।সেখান থেকে অটোরিক্সায় করে পতেঙ্গা চলে যান(২০ টাকায়)।সেখান থেকে ঘুড়ে চলে।আসুন নেভাল।বা আগে নেভাল এসে পরে পতেঙ্গা যান।নেভাল যাওয়ার ভারা পতেঙ্গা থেকে ১০ টাকা।তারপর সন্ধার মধ্যে ৬ নম্বর বাসে চলে আসেন চট্টগ্রাম স্টেশন(ভাড়া ৩০টাকা)।সেখান থেকে আগে রাত্রের খাবার খেয়ে নিন ৩০ থেকে ৪০ টাকায়।তারপর ২০টাকার কিছু হালকা খাবার কিনে নিন।তারপর ১২৫টাকায় ঢাকা মেইল ট্রেন এরর টিকেট কিনে ফেলুন।চেষ্টা করবেন ৯টার মধ্যে প্লাটফর্মে থাকার।এখন ট্রেনে উঠে চলে আসুন।

সবাই গুলিয়া খালি যাওয়ার কথা বলে তবে আমাদের কাছে জায়গাটা ভালো লাগে নি।সে জন্য আমরা সেখানে সময় নষ্ট না করে বেড়িবাঁধ ধরেই পায়ে হেঁটে বাশবাড়িয়া চলে আসছি।

চাইলে টুরটা ১দিনেই শেষ করে রাতে আবার বেক করতে পারেন।আর না হয় একদিন থাকতে পারেন।আমরা সীতাকুণ্ড থেকে ছিলাম।সন্দীপ হটেল এ।দুই জনের ৫০০টাকা লেগেছে।

কিছু জানার থাকলে জিজ্ঞেস করতে পারেন।
আর যেখানেই যান পরিবেশ পরিচ্ছন্নতার কথা মাথায় রাখবেন।

  • Travelers of Bangladesh
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin24@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 196 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
bdsaradin24.com