‘তোমাকে চার তলা থেকে ফেলে মারবো’

Print
আরিফুল ইসলাম আরিফ, জাবি প্রতিনিধি:
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের এক খন্ডকালীন শিক্ষককে চতুর্থ তলা থেকে ফেলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের এক শিক্ষকেরবিরুদ্ধে।
অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম খন্দকার হাসান মাহমুদ। তিনি ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।
সোমবার ভূক্তভোগী শিক্ষক মো. মুনির মাহমুদ উপাচার্য বরাবর ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে।

লিখিত অভিযোগে মো. মুনির মাহমুদ বলেন, ১৯ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে দশটায় ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ থেকে বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক মো. শাহেদুর রশিদের নির্দেশনায় ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের পূর্বে তালাবদ্ধ কক্ষের তালা ভাঙ্গার জন্য বিভাগের স্টাফরা আসেন। আমি তাদেরকে ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের পরিচালকের সাথে কথা বলে তারপর তালা ভাঙ্গার অনুরোধ করি।
পরবর্তীতে সকাল ১০ টায় ৪২ মিনিটে স্টাফদের তালা না ভাঙ্গতে অনুরোধ করাতে ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ আমাকে ফোন দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং চতুর্থ তলা থেকে ফেলে জীবন নাশের হুমকি দেন। আমি বিষয়টি ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের পরিচালককে অবগত করলে তিনি খন্দকার হাসান মাহমুদের সাথে যোগাযোগ করলে চার তলা থেকে ফেলে দেওয়ার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন। এমতাবস্থায় আমি এবং আমার সহকর্মীরা অনিরাপদ বোধ করছি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘটনাস্থলে উপস্থিত একাধিক শিক্ষার্থী বলেছেন, খন্দকার হাসান মাহমুদ উচ্চস্বরে মো. মুনির মাহমুদ স্যারকে তুমি ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের কে, তোমাকে চার তলা থেকে ফেলে দিয়ে মারবো এমন কথা বলেছেন।
ঘটনার সত্যতা জানতে খন্দকার হাসান মাহমুদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ‘চতুর্থ তলা থেকে ফেলে’ দেওয়ার কথা স্বীকার করেন।
এসময় তিনি আরও  বলেন, আমাদের বিভাগের স্টাফরা কক্ষটি পরিস্কার করার জন্য খুলতে গেলে সে বাধা দেয়। সে বাধা দেওয়ার কে। সে তো শিক্ষক না। আমি তাকে চার তলা থেকে ফেলে দেব বলেছি। তাই বলে কি ফেলে দেব নাকি।
ইনস্টিটিউট অব রিমোট সেনসিংয়ের পরিচালক অধ্যাপক শেখ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, উনি (মনির) আমাদের খন্ডকালীন শিক্ষক। আমার কাছে চিঠি আছে। আর উনি শিক্ষক হোন আর নাই হোন, ছাত্র হলেও তো কাউকে এভাবে হুমকি দেওয়া যায় না।

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।
এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় জিডি করার প্রক্রিয়া চলছিল।
#বিডিসারাদিন/আরিফ
[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 341 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ