রাজশাহীবাসীর কাছে ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

Print

আহমেদ ফরিদ, রাজশাহী থেকে:
রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা ময়দানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভোট চেয়েছেন এলাকাবাসীর কাছে। দুর্নীতিমুক্ত, ক্ষুধামুক্ত সোনার বাংলা দেশ গড়তে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগকে জয়যুক্ত করতে হবে। উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে রাজশাহীবাসীর কাছে নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ঐতিহাসিক মাদ্রাসা ময়দানে জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণ করে সোনার বাংলা দেশ গড়তে নৌকায় ভোট দিয়ে উন্নয়নকে অব্যাহত রাখতে হবে। আমরা এখানে কিছু নিতে আসেনি জনগণকে দিতে এসেছি। জনগণের জন্য কাজ করে ভাগ্য বদলাতে এসেছি। বাংলাদেশকে উন্নত করতে এসেছি। দেশকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্য মুক্ত করে সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলবো। এসময় তিনি রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাঠে উপস্থিত জনগণের কাছে ভোট চান। সবাইকে হাত তুলে ওয়াদা করতে বলেন নৌকায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করতে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বিএনপি সরকার আমলে তাদের ক্যাডাররা আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীদের নির্মমভাবে হত্যা করে। শিবির ক্যাডাররা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা করে। বিএনপির সন্ত্রাসীদের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য কিভাবে মানুষ কষ্ট করেছে আমরা দেখেছি। এই রাজশাহীতে তারা আপনাদের দিয়েছিলো লাশের উপহার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে মানুষ অভয়ে চলতে পারতো না, ঘর থেকে বের হতে পারতো না। রাজশাহীকে তারা ত্রাসের নগরীতে পরিণত করেছিল। তাদেরই সৃষ্টি বাংলা ভাই। তারা দেশের উন্নয়ন করতে পারেনি, করেছে বোমাবাজি। বিএনপি-জামায়াত যেখানে সন্ত্রাস কায়েম করে, আওয়ামী লীগ সেখানে জনগণের জন্য উপহার নিয়ে আসে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামীলীগ জনগনের উন্নয়নের কথা ভাবে। জনগনের উন্নতির জন্য বিভিন্ন উন্নয়নমুলক প্রকল্পের বাস্তবায়ন করে বাংলার মানুষকে উপহার দিয়েছে। বিএনপি জামায়াত সরকার দেশবাসীকে লাশ উপহার দিয়েছে। এই রাজশাহীর ছাত্র শিক্ষক থেকে শুরু করে আমার দলের নেতা কর্মীদের নির্মমভাবে হত্যা করেছে। শুধু তাইনা বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে এই এলাকার ছোট্ট শিশুকে গণধর্ষণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা জনগনের স্বার্থে বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি করেছি তারা সেটিকে পুড়িয়েছে। পুলিশ সদস্যকে রাস্তায় পিটিয়ে মেরে ফেলেছে। আন্দোলনের নামে বাসে পেট্রোল দিয়ে মানুষ পুড়িয়েছে। এভাবে মানুষ হত্যা করে কোন রাজনীতি করছে বিএনপি।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি চেয়ার পারসন বেগম খালেদা জিয়া এতিমের টাকা মেরে বিদেশে পাচার করেছেন। তার জন্য তাকে কারাদন্ড দিয়েছে। এতিমের উপর অন্যায়কারীকে মুক্তি দেবার জন্য বিএনপি নেতারা এখন নতুন করে আন্দোলন শুরু করেছে। অন্যায়ের পক্ষে এ আন্দোলন দিয়ে বিএনপি কি বোঝাতে চায়।

এর আগে বিকেল পৌনে ৪টায় তিনি ঐতিহাসিক মাদ্রাসা ময়দানের জনসভাস্থলে পৌঁছান। এরপর প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর ২৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

প্রধানমন্ত্রী যে ২০টি উন্নয়ন প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করেছেন তার মধ্যে রয়েছে ১৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকা ব্যয়ে পুঠিয়ায় বারনই নদীতে ড্যাম নির্মাণ, ২ কোটি ৮৭ লাখ ৫৬ হাজার টাকা ব্যয়ে রাজশাহী (নর্থ) ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন নির্মাণ, ১ কোটি ৫১ লাখ ৯৮ হাজার টাকা ব্যয়ে নওহাটা ফায়ার স্টেশন নির্মাণ, ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট নির্মাণ।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজের ৫ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, শহীদ কামারুজ্জামান সরকারি ডিগ্রি কলেজের ৫ তলা একডেমিক ভবন নির্মাণ, দামকুড়া হাট কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, আড়ানী ডিগ্রি কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, তানোর আব্দুল করিম সরকার ডিগ্রি কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, বাগমারা কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, বিড়ালদহ কলেজের ৪ তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ, রাজশাহী মহানগরীর নবনির্মিত ৮টি থানা ও গোদাগাড়ী উপজেলায় প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী যে ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তার মধ্যে রয়েছে- ১ হাজার ৫শ’ কোটির টাকা ব্যয়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, প্রায় ৯শ’ ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে কাশিয়াডাঙ্গা ও মেহেরচ-ীতে জিআইএস বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণ, প্রায় ১৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ফ্লাইওভার নির্মাণ, ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সরকারি মহিলা কলেজের ৬তলা ভিত বিশিষ্ট ছাত্রী নিবাস নির্মাণসহ বড়াল নদীর ওপর গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, গোদাগাড়ী ও চারঘাটে ভূমি অফিস নির্মাণ, মাড়িয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র নির্মাণ ও শাহ মখদুম মেডিকেল কলেজের একাডেমিক ভবন নির্মাণ। জনসভা শেষে বৃহস্পতিবারই প্রধানমন্ত্রী ঢাকায় ফিরবেন।#

 

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 103 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ