শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরতে উঠান বৈঠক

Print

বগুড়া প্রতিনিধি: আওয়ামীলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জনগণের কাছে তুলে ধরতে প্রায় ১বছর ধরে বগুড়া-৪ আসনের নন্দীগ্রাম ও কাহালু উপজেলার বিভিন্ন বাজারে এবং গ্রামে গ্রামে চলছে উঠান বৈঠক, লিফলেট বিতরণসহ সভা-সমাবেশ। প্রত্যেক সপ্তাহের শুক্রবার থেকে শনিবার চলে এই কার্যক্রম। এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তরুন আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব অধ্যাপক আহছানুল হক। শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তৃনমূলে তুলে ধরতে নেতাকর্মীদের নিয়ে গ্রামে গ্রামে উঠান বৈঠক ও সমাবেশ করে চলেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলের ছাত্রলীগের এই সাবেক ছাত্রনেতা। তার সহযোগীতা ও তৃণমূলে নিয়মিত যোগাযোগ রাখার কারণে উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। ফলে চাঙাভাব দেখা দিয়েছে তৃণমুলের রাজনীতিতে। বাড়ছে নৌকার প্রচার-প্রচারণাও। সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা বেশ সক্রিয়ভাবেই উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরছেন।
বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন বাজারে লিফলেট বিতরণকালে আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব অধ্যাপক আহছানুল হক বলেন, আমি জনগণকে জানাতে এসেছি আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নে বিশ্বাসী। আমরা ক্ষমতায় থাকলেই উন্নয়ন হয়। ক্ষমতার চার বছরে আগের মেয়াদের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে শেখ হাসিনার সরকার। আছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গৌরবময় অনেক অর্জন। বাঙালি জাতির পিতার ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর ‘ঐতিহাসিক দলিল’ হিসেবে স্বীকৃতি হওয়ার পর অনন্য এক উচ্চতার শিখরে পৌঁছলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশ। কৃষি, শিক্ষা, কূটনীতি, বিদ্যুৎ, খাদ্য নিরাপত্তা ও অর্থনীতিতে ঘটেছে সরব বিপ্লব। লাখ লাখ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা এখন ‘বিশ্ব মানবতার জননী। সরকারের সবচেয়ে বড় সাফল্য ব্যাপক অবকাঠামো উন্নয়ন, জঙ্গি দমন ও আইনশৃঙ্খলার উন্নয়ন। গ্রামে গ্রামে প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌছে গেলে শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন।
সূত্রমতে, বগুড়া-৪ আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী অধ্যাপক এ এন এম আহছানুল হক নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। কাহালুর শীতলাই গ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনুসারি সাবেক প্রধান শিক্ষক মরহুম এ কে এম আমীর আলীর আহছানুল হক ঢাকার ধানমন্ডি অক্রফোর্ড ইংলিশ স্কুলের সাবেক ইংরেজী শিক্ষক, ঢাকা সরকারি পল্লবী কলেজের সাবেক প্রভাষক, শ্রী সেতি দেবী মাধ্যমিক স্কুল, ফারাপিং, কাঠমুন্ডু, নেপালের সাবেক ইংরেজী শিক্ষক, অরুণদয় একাডেমি (উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়), কাঠমন্ডু, নেপালের সাবেক গেষ্ট লেকচারার ও ঢাকার দক্ষিণখান সরদার সুরুজ্জামান মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইংরেজী বিভাগের সহকারি অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত। ১৯৮৮ সালে ছাত্রলীগের প্রাথমিক সদস্য কুপণ পূরণের মাধ্যমে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন আহছানুল হক। ১৯৯১ সাল ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলের ছাত্রলীগের এক-নিষ্ঠ সক্রিয় কর্মী ছিলেন। রাজধানীর দক্ষিণখান আন্মাহ্ ইন্টারন্যাশন্যাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এই আওয়ামীলীগ নেতা।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 121 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ