যাত্রীরা ‘চেক্‌ড ব্যাগ’ পাচ্ছেন না কেন

Print

লিবিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশে ফেরার পর পাচ্ছেন না তাদের চেক্ড ব্যাগ। ব্যাগে পেতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের লস্ট অ্যান্ড ফাইন্ডে খোঁজ নিয়েও কোনও প্রতিকার পাচ্ছেন না তারা। বরং দেশের বিভিন্নস্থান থেকে বিমানবন্দরে ব্যাগের জন্য এসে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। অনেকেই অভিযোগ দিচ্ছেন বিমানবন্দরের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে। লিবিয়ার থেকে বাংলাদেশে সরাসরি ফ্লাইট কিংবা কোড শেয়ারেরর মাধ্যমে কানেক্টিং ফ্লাইট কোনও এয়ারলাইন্সের না থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ ইউসুফ।

বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে, প্রতিনিয়ত লিবিয়া থেকে আগত যাত্রীদের অভিযোগ চেক্ড ব্যাগ না পাওয়ার। ব্যাগ না পেয়ে যাত্রীরা লস্ট অ্যান্ড ফাইন্ড ও বিমানবন্দরের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে অভিযোগ দিচ্ছেন। যে এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে দেশে ফিরেছেন, সে এয়ারলাইন্সে ব্যাগের খোঁজ নিতে বারবার বিমানবন্দরে এসে হয়রানির মধ্যে পড়ছেন।

গত ১ ডিসেম্বর লিবিয়া থেকে দেশে আসেন আরজু মিয়া। লিবিয়া থেকে প্রথমে তিনি লিবিয়া উইং নামের একটি এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে ইস্তাম্বুল আসেন, এরপর সেখান থেকে ইমিরেটস এয়ারওয়েজে দুবাই। ফের ইমিরেটস এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে দুবাই থেকে ঢাকায় ফেরেন আরজু মিয়া। তবে ঢাকায় ফিরে তার ৩০ কেজি ও ১০ কেজি ওজনের দু’টি লাগেজ পাননি তিনি। এমিরেটস এয়ারলাইন্সের সঙ্গে একাধিবার যোগাযোগ করেও কোনও সমাধান না পেয়ে তিনি বিমানবন্দরের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে অভিযোগ করেন।

এ প্রসঙ্গে আরজু মিয়া বলেন, ‘দেশে ফিরে ব্যাগেজ না পেয়ে আমি এমিরেটসের সঙ্গে যোগাযোগ করি। প্রথমে তারা আমার ফোন নম্বর রেখে জানায়, পরে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। পরবর্তী সময়ে আমি যোগাযোগ করলে তারা জানায় ৩০ কেজি ওজনের ব্যাগটি এনে দেবে। তবে ১০ কেজি ওজনের ব্যাগ আনতে হলে অতিরিক্ত চার্জ দিতে হবে। আমি তাদের জানাই ৩০ কেজি ওজনের ব্যাগটি এনে দিতে। এরপর তিন মাস পার হলেও এমিরেটস এয়ারলাইন্স আমার সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করেনি। এরপর আমি তাদের অফিসে গেলে তারা জানায় ইস্তাম্বুল থেকে আমার ব্যাগ লিবিয়া ফেরত গেছে। এমিরেটস আমার ব্যাগ আর এনে দিতে পারবে না।’

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 138 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ