নির্দিষ্ট সময়ে বই বিতরণ নিয়ে শঙ্কায় এনসিটিবি

Print

আন্তর্জাতিক বাজারে কাগজের দাম বাড়ায় দেশেও কাগজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে একটি সিন্ডিকেট চক্র। চক্রটি নিয়ম বহির্ভূতভাবে দাম বাড়িয়ে দেয়ায় এবার জাতীয় পাঠ্যক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) আগের বছর থেকে ব্যয় বেড়েছে একশ কোটি টাকারও বেশি।

এদিকে হঠাৎ এতো খরচ বাড়ায় বেকায়দায় পড়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া দরপত্র চূড়ান্ত করতে বিলম্ব হওয়ায় যথাসময়ে বই বিতরণ করতে পারবে কিনা সে শঙ্কাও কাটেনি এখনো। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দরপত্র চূড়ান্ত করতে একটু দেরি হলেও যথা সময়েই বই বিতরণ সম্ভব হবে।

জানা গেছে, কাগজের দাম বাড়ায় প্রাথমিক স্কুলপর্যায়ের বিনামূল্যের বই ছাপাতে অতিরিক্ত ব্যয় বেড়েছে ১১১ কোটি টাকা। বই ছাপাতে এই অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে বাধ্য হচ্ছে সরকার।

গত ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের বইয়ের প্রতি ফর্মা এক টাকা ৯৫ পয়সায় ছাপাতে পেরেছিলো মুদ্রণকারীরা। এবার প্রতি ফমায় ৯৭ পয়সা বেড়ে খরচ পড়ছে দুই টাকা ৯২ পয়সা। গত শিক্ষাবর্ষে বইপ্রতি ব্যয় হয়েছিলো গড়ে ২৬ টাকা। এবার বইপ্রতি ১১ টাকা খরচ বেড়ে ব্যয় পড়ছে ৩৭ টাকা। সেই হিসাবে প্রাথমিক পর্যায়ের ১১ কোটি বইয়ে খরচ পড়ছে প্রায় ৩৬০ কোটি টাকা। যা নগত অর্থবছরে ছিলো ২৪৯ কোটি টাকা। এবার খরচ বেড়েছে ১১১ কোটি টাকা।

জানা গেছে, কাগজের দাম বেড়ে যাওয়ায় প্রাথমিক স্কুলপর্যায়ের বই ছাপাতে আগের চেয়ে বেশি দামে দরপত্র আহ্বান করে এনসিটিবি। সেই দামেও আশানুরূপ দরপত্র জমা না হওয়ায় বাধ্য হয়ে গত ১৩ আগস্ট পুনরায় দরপত্র আহ্বান করে সংস্থাটি। পুনঃদরপত্র করে শুধু প্রাথমিকের বই ছাপায় সরকারের অতিরিক্ত খরচ হচ্ছে ১১১ কোটি টাকা। দ্বিতীয় দফায় দরপত্র আহ্বান করায় বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারতের প্রতিষ্ঠান কৃষ্ণা প্রিন্টার্স এক লটে ৭১ লাখ ৫৭ হাজার ৪১৩ এবং স্বপ্না প্রিন্টার্স অন্য লটে ৩২ লাখ ৯৬ হাজার ১৭২টি বই ছাপার কাজ পেয়েছে।

এনসিটিবির কর্মকর্তা বলেন, দরপত্র চূড়ান্ত হওয়ার পর কার্যাদেশ দিতে মুদ্রণকারীদের সঙ্গে চুক্তিতে আরো ২৮ দিন সময় দিতে হবে। তারপর আরও ৮৪ দিন সময় দিতে হবে বই ছাপিয়ে উপজেলায় পৌঁছানোর জন্য। এরপর আরও এক মাস সময় পাবে জরিমানা দিয়ে বই দেয়ার। তিনটি অফিসিয়াল প্রক্রিয়া শেষ করে বই দিলেও তা ডিসেম্বর পর্যন্ত গড়াবে। অর্থাৎ নির্বাচনী বছরে অক্টোবরের মধ্যে বই ছাপিয়ে উপজেলায় পৌঁছানোর সরকারের যে সিদ্ধান্ত ছিল তা অনেকটা অসম্ভব হয়ে পড়লো পুনঃদরপত্র আহ্বানের কারণে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 157 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ