ছড়িয়ে পড়েছে রোটা ভাইরাস

Print

দেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে রোটা ভাইরাস। ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাবের জন্য প্রধানত দায়ী এই ভাইরাস। প্রতিবছরই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন সংখ্যায় শিশুর মৃত্যু ঘটে। শীত ও গরমকালে এই ভাইরাসের প্রকোপ বেশি হয়।

কয়েক বছর আগে থেকেই সরকারিভাবে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচির আওতায় রোটা ভাইরাসের টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হলেও এখন পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি। এ নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মধ্যেই অসন্তোষ ও বিতর্ক আছে।

দেশের সাতটি বিশেষায়িত হাসপাতালে শিশু রোগীদের ওপর বিশেষ নজরদারির মাধ্যমে দেখা যায়, ৮২ শতাংশই রোটা ভাইরাসে আক্রান্ত; যাদের মধ্যে ৬-১১ মাস বয়সী শিশুর এ ভাইরাসে আক্রান্তের হার ছিল ৮৫ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, এ বছর জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেওয়া রোগীর সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ২০ লাখ। আর মৃত্যু হয়েছে কমপক্ষে আটজনের।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে শিশুদের ডায়রিয়ার জন্য দায়ী প্রধান চারটি ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভয়ংকর হয়ে উঠেছে রোটা ভাইরাস।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা  বলেন, ডায়রিয়ার জন্য সবচেয়ে বেশি বিপজ্জনক রোটা ভাইরাস। এখন যে ডায়রিয়ার প্রকোপ চলছে সেটার বেশির ভাগই এই ভাইরাসের কারণে হয়ে থাকে। এই ভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য এখনো পরিপূর্ণ কোনো চিকিৎসা নেই। তবে স্যালাইনসহ আরো কিছু উপসর্গ নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থাপনা আছে। সেগুলো ভালোভাবেই চলছে। তিনি বলেন, ‘সরকারিভাবে আমরা এখনো জাতীয় টিকাদান কর্মসূচিতে রোটা ভাইরাসের টিকা চালু করতে পারিনি আমাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অভাবে।’

ওই রোগতত্ত্ববিদ আরো বলেন, ‘বেসরকারিভাবে রোটা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকা পাওয়া যায়। সরকারিভাবে দেওয়ার জন্য আরো আগেই আমরা গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমুনাইজেশনের (গ্যাভি) অনুমোদন পেয়েছি। বছরখানেক আগে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচিতে এই টিকা চালুর উদ্যোগও নেওয়া হয়েছিল, কিন্তু কোনো কোনো পক্ষ থেকে এই টিকার কার্যকারিতা ও ভালোমন্দের ব্যাপারে প্রশ্ন ওঠে। এরপর এসব বিষয় নিষ্পত্তি করার জন্য সাবকমিটি গঠন করে দেওয়া হয়। এখনো ওই কমিটির কাজ শেষ হয়নি।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 169 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ