ভারতে পর্বতারোহণে বাংলাদেশ-পাকিস্তান-চীনের জন্য বিধি-নিষেধ!

Print

ভারতে অবস্থিত কোনো পাহাড়ের চূড়ায় ওঠা কিংবা ট্রেকিং এর ক্ষেত্রে এবার বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও চীনের পর্বতারোহীদের আগাম অনুমতি নিতে হবে। ইন্ডিয়ান মাউন্টেনিয়ারিং ফাউন্ডেশন (আইএমএফ) এর পক্ষ থেকে ঠিক করে দেওয়া নির্দিষ্ট পথেই পাহাড়ে উঠতে হবে তাদের। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এ সম্পর্কিত এক নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

৭০ বছরের পুরনো ‘ফরেইনার্স (অ্যামেন্ডমেন্ট) অর্ডার ২০২৯’ অনুযায়ী-বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও চীন-এই চারটি দেশের কোনো নাগরিক বা বংশোদ্ভূত ব্যক্তিকে-পর্বতারোহণ কিংবা ট্রেকিং এর জন্য ব্যবহারের অনুমতি নেই, এমনটি ব্যতীত-ভারতের কোন পাহাড়ের চূড়ায় পর্বতারোহন কিংবা ট্রেকিং ওঠার ক্ষেত্রে আগাম অনুমতি নিতে হবে।

মন্ত্রণালয় আরো জানিয়েছে ওই পাহাড়ে ওঠার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পথ ঠিক করে দেবে আইএমএফ এবং এক্ষেত্রে একজন লিয়াজোঁ অফিসার নিয়োগ করা হবে। জারি করা হবে বেশ কিছু বিধিনিষেধ।

অতীতে গোটা ভারতে ১৩৭ টি চূড়া পর্বতারোহীদের জন্য খোলা ছিল-যার মধ্যে অন্যতম সিকিমের কাঞ্চনজঙ্ঘা ও নেপাল চূড়া, উত্তরাখণ্ডের গরুর পর্বত ও পূর্বি দুনাগীরি, জম্মু-কাশ্মীরের মাউন্ট কৈলাস এবং হিমাচল প্রদেশের মুলকিয়া পর্বত।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে সরকারের থেকে আগাম অনুমতি কিংবা কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি না দিয়ে বিদেশি কোনো ব্যক্তি বা কোনো বিদেশি গ্রুপ-পর্বতারোহণ কিংবা ট্রেকিং এর জন্য ব্যবহার করা হয় এমন পর্বতমালা ছাড়া ভারতের কোন পর্বতমালায় উঠতে কিংবা ওঠার চেষ্টা করতে পারবেন না।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 48 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ