মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির নামে ২০০ কোটি টাকা পাচার!

Print

মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির আড়ালে ২০০ কোটি টাকা পাচার করেছেন আমদানিকারকরা। গত আগস্ট থেকে নভেম্বর পর্যন্ত চার মাসে দেশটি থেকে মোট ৩৪ হাজার ৮৬১ টন পেঁয়াজ আমদানির আড়ালে এ মুদ্রা পাচার হয়। দেশের শীর্ষ ৪৩ পেঁয়াজ আমদানিকারককে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্ত শেষে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর এ ব্যাপারে চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরি করেছে। প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়। সংস্থাটি মনে করে, এসব মুদ্রাপাচারকারীকে ধরতে আরো বিশদ অনুসন্ধান প্রয়োজন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৪৩ জন আমদানিকারক মোট এক হাজার ৮৩ জন সরবরাহকারীর কাছে তাঁদের পেঁয়াজ বিক্রি করেন। নিজেরা কেজিপ্রতি দুই থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ টাকা মুনাফা করেন বলে শুল্ক গোয়েন্দা কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা জানান। তবে সংস্থাটি মনে করে, একটি অসাধু ব্যবসায়ীচক্র সংকটের অজুহাতে পেঁয়াজ বিক্রিতে অতি মুনাফা করেছে।

মোট ৪৭ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর পেঁয়াজের বাজার সব সময় স্থিতিশীল রাখতে ভারত থেকে আমদানি অর্ধেক কমিয়ে অন্য দেশ থেকে আনার প্রস্তাবসহ বেশ কিছু সুপারিশ করেছে। প্রতিবেদনটি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ (এনবিআর) সরকারের বিভিন্ন মহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পাঠানো হয়েছে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 39 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ