রাজাকারের তালিকায় নাম দেখার থেকে মরে যাওয়া ভালো ছিল

Print

মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট তপন কুমার চক্রবর্তী বলেছেন, স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এসে রাজাকারের তালিকায় আমার নাম লিপিবদ্ধ হয়েছে। এটা দেখার থেকে আমার মরে যাওয়া ভালো ছিল।

মঙ্গলবার সকালে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এমন কথা বলেন তপন কুমার।

তিনি আরও বলেন, আমার বাবা সুধীর কুমার চক্রবর্তীকে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ১২ আগস্ট পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বাসা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ওয়াপদা বধ্যভূমিতে হত্যা করে।

তপন কুমার বলেন, তার বাবার লাশ পর্যন্ত পরিবারকে দেয়া হয়নি। মুক্তিযুদ্ধের পরে সুধীর চক্রবর্তীকে শহীদ মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতিও দেয়া হয়। বাবার মৃত্যুর পর আমি সেপ্টেম্বর মাসে ট্রেনিংয়ের জন্য ভারতে যাই।

তিনি বলেন, অক্টোবর মাসে দেশে ফিরে ৯নং সেক্টরে সাতক্ষীরা, খুলনা ও বরিশাল জেলায় সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেই। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত গেজেটে আমার নাম প্রকাশিত হয়।’

‘এখন ৪৮ বছর পর এসে রাজাকারের তালিকায় আমার নাম এবং আমার মা ঊষা রানী চক্রবর্তীর নাম এসেছে। এতে আমি মর্মাহত এবং বলার কোনো ভাষা নেই।’

প্রসঙ্গত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নথি পর্যালোচনা করে প্রথম ধাপে ১০ হাজার ৭৮৯ জন রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

গত রোববার প্রকাশিত ওই তালিকায় মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট তপন কুমার চক্রবর্তী নাম পাওয়া যায়।

এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন তার মেয়ে ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মেয়র প্রার্থী বাসদ নেত্রী ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 84 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ