জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে–ইউএনও, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট,স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও বেনাপোল থানার ওসি মামুন খান

Print

বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের সীমান্তবর্তী শার্শা উপজেলা ও বেনাপোল পোর্ট থানার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আতঙ্কে, দুশ্চিন্তার মধ্যে, অনেকে পরিবারের সঙ্গে থেকেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। আতঙ্ক আরো বেড়েছে উপজেলা সদর, নাভারন হাসপাতাল ও বেনাপোলের বোয়ালিয়া গ্রামে স্বাস্থ্য কর্মীসহ এক স্বাস্থ্য কর্মীর ছেলে করোনায় আক্রান্ত হওয়ায়। দেশের সবচেয়ে বড় স্থলবন্দর বেনাপোল হয়ে আসা ভারত ফেরতদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা, কোয়ারেন্টিনে রাখা ও তাদের দেখাশোনার দায়িত্ব পালন করছেন তারা।

তাছাড়া উপজেলায় কর্মহীন, অসহায়, বেকার হয়ে পড়া লোকজনকে ত্রাণ দেওয়া, বিভিন্ন এলাকায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, বাজার নিয়ন্ত্রণ করা, মোবাইল কোর্ট চালুসহ অন্যান্য দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে তাদেরই।এসব করতে গিয়ে তারা নিজেরা যেমন ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন, তেমনি তাদের সঙ্গে থাকা পরিবারের সদস্যরাও রয়েছেন ঝুঁকির মধ্যে। তাদেরই কয়েকজন তাদের অভিজ্ঞতা ও অনুভূতির কথা জানিয়েছেন।

শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পুলক কুমার মন্ডল বলেন, ঝুঁকি থাকা সত্বেও আমরা উপজেলা প্রশাসনের সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মাঠপর্যায়ে কাজ করছি।ভারতে আটকে পড়া লোকজনকে দেশে ফেরত আনার ব্যাপারে সরকার কাজ করছে। ভারতেও করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। ঝুঁকি থাকলেও তাদের নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। তাদেরকে প্রশাসনিক কোয়ারেন্টিনে রাখা, থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করছি। তাদের সঙ্গে মিশতে হচ্ছে। তাই মনে ভয় তো আছেই। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কাজ করতে গিয়ে এ এলাকার ২/৩ জন স্বাস্থ্য কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তার পরও সর্বাধিক সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে কাজ করছি। কারণ চাকরিতে ঢোকার পর এটা পবিত্র দায়িত্ব হিসেবে নিয়েছি। দেশের জন্য কাজ করাটাই আমার ব্রত।পরিবার-পরিজন সম্পর্কে তিনি বলেন, “ঝুঁকির কারণে এক মাস হল পরিবার থেকে দূরে আছি। পরিবারের সদস্যরা যশোর শহরে থাকেন। তাদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ নেই। তবে কথা হয়। পরিবার থেকে বারবার সতর্ক করছে। আমিও তাই সতর্ক থেকে কাজ করছি। তবে অনেকেই পরিবার-পরিজনের সঙ্গে থাকেন। এটা একটা চিন্তার বিষয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোরশেদ আলম চৌধুরী তার ফেইসবুকে লিখেছেন তার কাজের অভিজ্ঞতা ও পরিবার-পরিজন নিয়ে অনুভূতির কথা।সত্যিই এখন আমার ভয় করে বাইরে যেতে, ডিউটির পর বাসায় ফিরতে। ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন ছিল ম্যাজিস্ট্রেট হব, এই পেশার প্রতি খুব শ্রদ্ধা ও ফ্যাসিনেশন ছিল। নিজেকে এই পেশায় বিলিয়ে দিতে কখনও পিছপা হব না। এই করোনা যুদ্ধে নিজের শেষটুকু দিয়ে লড়ে যেতে চাই। হয়তো জনসাধারণকে সচেতন করতে পারলেই, এ যুদ্ধে আমরা জয় হতে পারবো। তাই তিনি সকলকে নিজ ঘরে থাকতে অনুরোধ করেন। পাশাপাশি অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হতে নিষেধ করেন। আর কেউ যদি বের হন, তবে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে, মাস্ক, গ্লাভস পরে বের হতে বলেন।নিজের ছোট ছেলে ও পরিবারকে বাসায় রেখেও প্রতিদিন করোনা বিস্তার প্রতিরোধ, ভারত থেকে আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন নিশ্চিতকরা, হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিতকরা, মোবাইল কোর্ট, বাজার মনিটরিং, মানুষকে নিজ ঘরে অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য ছুটে চলছি উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে। আমার নিজের খাওয়া-ঘুম বাদ দিয়ে ডিউটিতে যাই সমস্যা নেই, কিন্তু এখনকার পরিস্থিতি একদমই ভিন্ন, মানুষকে বুঝিয়ে, অনুরোধ করে, জরিমানা করেও ঘরে রাখা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হচ্ছে না। এখন আমি আমার পরিবারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। আমার মাধ্যমে যদি ভাইরাস বাসায় নিয়ে যাই তো আমার ছেলের ও পরিবারের কী হবে? তবুও আমি ডিউটি করছি। পালাইনি। পালাবও না। ভয় করে ছেলেকে চুমু দিতে, কোলে নিতে। নিজের নিঃশ্বাসকেই বিষাক্ত মনে হয়। তার মধ্যে পিপিই পরে বাইরে রোদের মধ্যে কাজ করাও বিশাল এক যন্ত্রণা! মাস্ক পরে দম কেমন বন্ধ হয়ে আসে। প্রতিটি ডিউটিই এমন মানসিক আর শারীরিক কষ্টে ভরা।

আর একজনের কথা না বললেই নয়। তিনি বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান। ইউএনও, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের সাথে সার্বক্ষনিক পাশে থেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। সেই সাথে করোনার মধ্যে মাদক পাচাররোধে, এলাকার শান্তি শৃংখলা বজায় রাখতে কাজ করে চলেছেন। সেখানেই সমস্যা সেখানেই ছুটে যাচ্ছেন। প্রশাসনকে সার্বক্ষনিক সহযোগিতা করে চলেছেন তিনি। পরিবার পরিজন রয়েছেন খুলনাতে। কতদিন যাননি বাড়িতে সেটা ভুলে গেছেন। কর্তব্য পালন করতে গিয়ে মাঝে মধ্যে পরিবারের কথাও ভুলে যান। আমরা বড় বড় দুর্যোগ দেখেছি। এমন মহামারি দেখেনি। সারা বিশ^কে থমকে দিয়েছে করোনা ভাইরাস। থানার অন্যান্য পুলিশ অফিসার ও কনস্টেবলরা আমাদের সাথে দিনরাত সমানভাবে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। তাদের অনেকেই পরিবার নিয়ে থাকেন। তাদের বলে দেওয়া হয়েছে ভাল করে পোষাক খুলে জীবনানাশক ছিটিয়ে নিজেকে জীবানুমুক্ত মুক্ত হয়ে বাড়িতে যাবেন। তারপরও দুরত্ব বজায় রাখবেন। কোন সমস্যা দেখা দিলে আমাকে জানাবেন। রাতে ছেলে ফোন দিয়ে খোজ খবর নেয়। ভাল আছি, তোমরা সাবধানে থেকো এই ছাড়া বলার কি আছে। দেশের দুর্যোগে পরিবারের কথা ভেবে নিজেকে গুটিয়ে নিতে মন সায় দিল না। তিনি আরও বলেন, ‘স্ত্রী প্রথমে করোনা ভাইরাসে ভয় পেলেও পরে বলে দেশের মানুষের জানমালের দায়িত্ব নিয়েছো। এই দুর্দিনে তুমি তাদের পাশে থাকো। সংসার, সন্তান, পরিবার আমি সামলে নেব।’

প্রশাসনের লোকদের মতই এ সময় কাজ বেড়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজনেরও। ঝুঁকির মধ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন তারা।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার আব্দুল আজিজ বলেন, ভারত থেকে ফেরা প্রত্যেক যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি কিনা, করোনাভাইরাসের উপসর্গ আছে কিনা, সেসব দেখার দায়িত্ব আমাদের। এসব করতে গিয়ে আমাদের তিন সহযোগী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তারপর বলেন মনের অবস্থা কেমন হতে পারে।
ভারত থেকে আসা যাত্রীদের বাসায় নাকি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা উচিত, নাকি হাসপাতালে পাঠাতে হবে এসব নির্ণয় করতে হয়। এখানে ঝুঁকি তো থাকবেই। তার পরও সেবার মানসিকতা নিয়ে চাকরিতে এসেছি। সরকার সুরক্ষার জন্য হ্যান্ডগ্লাভস, মাক্স ও পিপিই দিয়েছে। এর পরও অজানা এক আতঙ্ক মনে কাজ করে। তাই আপাতত পরিবার থেকে দূরে থাকছি।

ভারত ফেরতদের মধ্যে যাদেরকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখার দরকার তাদের রাখা হচ্ছে ‘বেনাপোল পৌর বিয়ে বাড়িতে’। সেখানে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য সহকারি ডাক্তার আব্দুল মান্নান দায়িত্ব পালন করছেন।ডাক্তার আব্দুল মান্নান বলেন, তিন শিফটে তিনজন করে আমরা এখানে দায়িত্ব পালন করি। সতর্কতার সঙ্গে কাজ করি। তবু ঝুঁকি তো রয়েছেই। দায়িত্ব পালন শেষে বাসায় যাই। সেখানে পরিবার-পরিজনের সঙ্গে থাকি। সাবধানে থাকার চেষ্টা করি। তারপরও ভয়তো থেকেই যাচ্ছে। একমাত্র চিকিৎসকের পরিবারই জানে এসময় চিকিৎসক ও তাদের পরিবার কতটা ঝুঁকিতে আছেন। দূরে থেকে অনেক কথাই বলা যায়।আমাদের জন্য দোয়া করবেন আমরা যেন পীড়িত মানুষের পাশে থেকে সেবা দিয়ে যেতে পারি নিরন্তর। ভয়ে যেন না পালাই এই রণক্ষেত্র ছেড়ে।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও বিডিসারাদিন24 ডট কম অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইল, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, রান্নার রেসিপি, ফ্যাশন-রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- bdsaradin@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে। নারীকন্ঠ এবং মত-দ্বিমত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে  bdsaradin24.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরণের দায় গ্রহণ করে না। ]

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 83 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ