ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. ইতিহাস ঐতিয্য
  3. ইসলাম
  4. কর্পোরেট
  5. খেলার মাঠে
  6. জাতীয়
  7. জীবনযাপন
  8. তথ্যপ্রযুক্তি
  9. দেশজুড়ে
  10. নারী কন্ঠ
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. ফার্মাসিস্ট কর্নার
  13. ফিচার
  14. ফ্যাশন
  15. বিনোদন

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রম

ডেস্ক নিউজ
জুন ১৪, ২০২২ ২:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

“পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রম” (polycystic ovarian syndrome)
বাচ্চা না হবার জন্য যেসব মেয়েরা ডাক্তারের কাছে যায়, তাদের একটা বড় অংশ “পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রম” রোগে ভুগে থাকেন। এসব রোগী যখন খুব চিন্তিত মুখে ডাক্তারকে অনেক সমস্যার কথা বলেন যেমন: মাসিক অনিয়মিত, হরমনের সমস্যা, গায়ে লোম বেশি, ওভারিতে সিস্ট। কিছু কিছু ক্ষেএ ছাড়া, বেশিরভাগ রোগী সামান্য চিকিৎসায়ই গর্ভধারণ করতে সক্ষম হয়।
 
এইসব রোগীদের মূল সমস্যা হচ্ছে প্রচুর ডিম্বাণু থাকা সত্ত্বেও তাদের বাচ্চা হয় না, ডিম্বানু অপরিপক্ক ও ওভুলেশন না হওয়ার কারণে । সুতরাং এদের চিকিৎসা হচ্ছে ওভুলেশন করানো। ওভুলেশন করানোর জন্য বহু ধরনের ড্রাগ (Medicine) আমাদের দেশে পাওয়া যায়।
 
প্রথমত রোগী ও তার স্বামীর ধৈর্য থাকতে হবে। কারণ এদের চিকিৎসা করতে হয় ধাপে ধাপে। প্রতিটি ধাপে দরকার হয় মনিটরিং। আর সে মনিটরিং-এর জন্য আবশ্যক একটি আল্ট্রাসনোগ্রাম। যা থাকতে হবে গাইনোকলোজিস্টের হাতের কাছেই। কারো কারো শুধুমাত্র একটা ড্রাগেই কাজ হয়, কারো দুইটা, কারো তিনটা, কারো লাগে ইঞ্জেকশন।
 
কিছু কিছু ক্ষেত্রে ল্যাপারস্কোপির দরকার হয়। খুব কম ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় উন্নত চিকিৎসার যেমন- আই.ইউ.আই (IUI) ও আই. ভি.এফ (IVF) বা টেস্টটিউব (Test Tube) বেবী। এছাড়া ওভুলেশন করার পাশাপাশি এদের আরো কিছু চিকিৎসার দরকার হয়, যেমনঃ ওজন কমানো (ডায়েট ও এক্সারসাইজ), হরমনের সমস্যা, হাই-ব্লাড প্রেসার (উচ্চ রক্ত চাপ) বা ডায়েবেটিস থাকলে তার চিকিৎসা এবং সর্বোপরি সবসময় ফলো আপ-এ থাকা। কারণ পরবর্তীতে এদের হাই-ব্লাড প্রেসার (উচ্চ রক্ত চাপ), ডায়েবেটিস, হার্টের রোগ হবার সম্ভাবনা থাকে।
 
এসব রোগীর চিকিৎসার সময় আর একটা ভুল অনেক ক্ষেত্রে হয়ে থাকে, সেটা হচ্ছে স্বামীর Semen Test করতে ভুলে যাওয়া। এসব মেয়েদের চিকিৎসার সময় অবশ্যই স্বামীর Semen Test (specially semen volume, quantity of sperm & healthy sperm) করে দেখতে হবে তার কোন সমস্যা আছে কিনা।
 
“পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম” রোগীদের চিকিৎসা খুবই আশাব্যঞ্জক। কিন্তু সঠিকভাবে চিকিৎসা না করা গেলে রোগীদের ভোগান্তির শেষ নেই। স্ত্রী ও স্বামীর ইচ্ছা, পর্যাপ্ত জ্ঞান ও ব্যবহারিক শিক্ষা না থাকলে তা সম্ভব হয় না। পরিশেষে বলা যায়, অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ গাইনোকোলোজিস্ট দেখান, চিন্তামুক্ত ও সুস্থ জীবন-যাপন করুন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।